Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

অফিসের কার্যক্রম ও সার্ভিস চার্টারঃ

·        আইনশৃঙ্খলারক্ষা।

·        অপরাধনিয়ন্ত্রনওসনাক্তকরণ।

·        জীবনওসম্পত্তিরনিরাপত্তাবিধানকরা।

·        সন্ত্রাস/জঙ্গীবাদদমনকরা।

·        ট্রাফিকব্যবসহাপনা।

·        গুরুত্বপূর্নওঅতিগুরুত্বপূর্নব্যক্তিদেরনিরাপত্তাবিধান।

·        সামাজিকসচেতনতাবৃদ্ধিওঅপরাধনিয়ন্ত্রনেসামাজিকসক্ষমতাবৃদ্ধিরজন্যকাজকরা।

·        জরুরীঅবসহায়/দূর্যোগেসহায়তাকরা।

·        সরকারীপ্রয়োজনেঅন্যান্যসরকারী/বেসরকারীপ্রতিষ্ঠানকেনিরাপত্তাসহায়তাপ্রদানকরা।

 

 

সাভিস চার্টারঃ

·        বাংলদেশ পুলিশ জনগনের সেবা প্রদানকারী একটি প্রতিষ্ঠান।

·        জাতি ধর্ম, বর্ণ ও রাজনৈতিক/সামাজিক/অর্থনৈতিক শ্রেণী নির্বিশেষে দেশের প্রতিটি থানায় সকলকে সমান আইনগত অধিকার দেওয়া হয়।

·        থানায় আগত সাহায্য প্রার্থীদের আগে আসা ব্যক্তিকে আগে সেবা প্রদান করা হয়।

·        থানায় সাহায্য প্রার্থী সকল ব্যক্তিকে থানা পুলিশ সম্মান প্রদর্শন করে এবং সম্মানসূচক সম্বোধন করে।

·        থানায় জিডি করতে আসা ব্যক্তির আবেদনকৃত বিষয়ে ডিউটি অফিসার সর্বাত্মক সহযোগীতা প্রদান করে এবং আবেদনের ২য় কপিতে জিডি নমবর, তারিখ এবং সংশ্লিষ্ট অফিসারের স্বাক্ষর ও সীলমোহর সহ তা আবেদনকারীকে প্রদান করে। বর্ণিত জিডি সংক্রান্ত বিষয়ে যথাশীর্ঘ সম্ভব ব্যবসহা গ্রহণ করা হয় এবং গৃহীত ব্যবসহা পুনরায় আবেদনকারীকে অবহিত করা হয়।

·        থানায় মামলা করতে আসা ব্যক্তির মৌখিক/লিখিত বক্তব্য ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্তৃক এজাহারভূক্ত করা হয় এবং আগত ব্যক্তিকে মামলার নমবর, তারিখ ও ধারা এবং তদন্তকারী অফিসারের নাম ও পদবী অবহিত করা হয়। তদন্তকারী অফিসার এজাহারকারীর সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে তাকে তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে অবহিত করে এবং তদন্ত সমাপ্ত হলে তাকে ফলাফল লিখিতভাবে জানিয়ে দেয়।

·       থানায় মামলা করতে আসা কোন ব্যক্তির মামলা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা/থানার ডিউটি অফিসার এন্ট্রি করতে অপারগতা প্রকাশ করলে তখন উক্ত বিষয়টির উপর প্রতিকার চেয়ে নিম্নবর্নিত নিয়মানুযায়ী আবেদন করবেন ঃ-সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) এর নিকট ।

1.     তিনি যদি উক্ত বিষয়ে ব্যবসহা গ্রহণ না করেন তা হলে উক্ত ব্যক্তি জেলা পুলিশ সুপারের নিকট আবেদন করবেন।

2.    অতঃপর তিনিও যদি উক্ত ব্যক্তির বিষয়ে কোন ব্যবসহা গ্রহণ না করেন তাহলে রেঞ্জ ডিআইজি’র নিকট আবেদন করবেন।

3.  তারা কেউ উক্ত বিষয়ে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে মহা-পুলিশ পরিদর্শকের নিকট প্রতিকার চেয়ে আবেদন করবেন।

·        আহত ভিকটিমকে থানা হতে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করা হয় এবং এ বিষয়ে থানা সকল মেডিক্যাল সার্টিফিকেট সংগ্রহ করে।

·        মহিলা আসামী/ভিকটিমকে যথাসম্ভব মহিলা পুলিশের মাধ্যমে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়।

·        পাসপোর্ট/ভেরিফিকেশন/আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স ইত্যাদি বিষয়ে সকল অনুসন্ধান প্রাপ্তির ৩(তিন) দিনের মধ্যে তদন্ত সমাপ্ত করে থানা হতে সংশ্লিষ্ট ইউনিটে প্রতিবেদন প্রেরন করা হয়।

·        বিদেশে চাকুরী/ উচ্চ শিক্ষার জন্য গমনেচ্ছু প্রার্থীদের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।

·        সকল থানায় পুলিশ সুপার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, এএসপি (হেডকোয়ার্টার্স), সংশ্লিষ্ট সার্কেল এএসপি এবং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার টেলিফোন নমবর থানার প্রকাশ্য স্থানে প্রদর্শিত হবে।

·        থানা হতে অর্পিত আইন আইনগত সহযোগীতা না পাওয় গেলে বা কোন পুলিশ সদস্যের বিপক্ষে কোন অভিযোগ থাকলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের বরাবর অভিযোগ দাখিল করা হবে।

·        সেই ক্ষেত্রে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষঃ

      ক) লিখিত অভিযোগ প্রাপ্তির ১৫(পনের) দিনের মধ্যে যথাযথ আইনগত ব্যবসহা গ্রহন করে এবং

           তা অভিযোগকারীকে জানানো হয়। 

      (খ) ব্যক্তিগত ভাবে হাজির হওয়া ব্যক্তির বক্তব্য  মনোযোগ সহকারে শুনে, প্রয়োজনীয় ব্যবসহা

            করে ভিযোগকারীকে জানানো হয়।

     (গ) টেলিফোনে প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবসহা গ্রহন করা হয়।